28 C
Kolkata
Wednesday, July 6, 2022

উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী খাতিমায় ‘সুরাই ইকোট্যুরিজম জোন’, ‘কাকড়া ক্রোকোডাইল ট্রেইল’ উদ্বোধন করবেন

- Advertisement -spot_imgspot_img
- Advertisement -spot_imgspot_img


উধম সিং নগর (উত্তরাখণ্ড) [India], ডিসেম্বর 28 (ANI): উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামী বুধবার খাটিমায় ‘সুরাই ইকোট্যুরিজম জোন’ এবং ‘কাকড়া ক্রোকোডাইল ট্রেইল’ উদ্বোধন করবেন।

‘সুরাই ইকোট্যুরিজম জোন’ হবে রাজ্যের প্রথম এমন ইকো-ট্যুরিজম জোন যেখানে পর্যটকরা জঙ্গল সাফারি উপভোগ করতে পারবেন। এখনও অবধি, জঙ্গল সাফারি শুধুমাত্র রাজ্যের জাতীয় উদ্যান এবং বায়োস্ফিয়ার রিজার্ভগুলিতে অনুশীলন করা হচ্ছে, উত্তরাখণ্ড সরকারের একটি প্রেস বিবৃতি অনুসারে।

এছাড়াও, ‘কাকড়া ক্রোকোডাইল ট্রেইল; দেশের প্রথম কুমিরের ট্রেইল যেখানে পর্যটকরা কুমিরের প্রজাতি ‘মার্শ’কে খুব কাছ থেকে, নিরাপদে দেখতে পারবেন।

এই দুটি প্রকল্পই মুখ্যমন্ত্রীর ‘তরুণ ইকোপ্রেনিউর স্কিম’-এর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ যার অধীনে উত্তরাখণ্ডের স্থানীয় মানুষের অর্থনীতিকে বন ও বন্যপ্রাণীর সাথে সংযুক্ত করে স্ব-কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করা হচ্ছে। এই প্রকল্পের আওতায় 1 লক্ষ যুবককে ‘ইকোপ্রেনিউর’ বানানোর লক্ষ্য রয়েছে।

তরাই ইস্টার্ন ফরেস্ট ডিভিশনের ডিএফও সন্দীপ কুমার বলেছেন যে কীভাবে বনাঞ্চল ঘেরা খাটিমার জনগণকে পরিবেশ সুরক্ষা এবং আত্মকর্মসংস্থানের সাথে সংযুক্ত করা যায় তার জন্য একটি উদ্ভাবনী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হল খতিমা এবং আশেপাশের এলাকাগুলি, যা পর্যটনের দৃষ্টিকোণ থেকে পিছিয়ে রয়েছে, তাদের পর্যটনে একটি উচ্চ স্থান অর্জনে সহায়তা করা।

মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গি হল জীববৈচিত্র্য ও বন্যপ্রাণী সমৃদ্ধ ‘তরাই ইস্টার্ন ফরেস্ট ডিভিশন’কে পদ্ধতিগতভাবে গড়ে তোলার মাধ্যমে সুরাই বনাঞ্চলকে একটি ইকো-ট্যুরিজম জোনে রূপান্তর করা যাতে এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য স্থানীয়দের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ কর্মসংস্থানের জন্য ব্যবহার করা যায়। মানুষ এরই প্রেক্ষিতে তিনি অতীতে ‘তরাই পূর্ব বন বিভাগের’ সুরাই ও আশপাশের বনাঞ্চলকে পর্যটনের দৃষ্টিকোণ থেকে গড়ে তোলার ঘোষণা দিয়েছিলেন।

চার ভাগে ভাগ করে পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে সুরাই ইকোট্যুরিজম জোন, কাকরা ক্রোকোডাইল ট্রেইল, খাতিমা সিটি ফরেস্ট এবং চুকা মাইগ্রেটরি বার্ড সেন্টার স্থাপন। ডিএফও জানান যে সুরাই ইকোট্যুরিজম জোন এবং কাকরা ক্রোকোডাইল ট্রেইল প্রকল্পের নির্মাণ ও উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। খাতিমা সিটি ফরেস্ট ও চুকা পরিযায়ী পাখি কেন্দ্রের উন্নয়নের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

রিলিজ অনুযায়ী, সুরাই ইকোট্যুরিজম জোনের দুটি সুবিধা হবে, প্রথমত, এই এলাকাটি জীববৈচিত্র্যে সমৃদ্ধ এবং এটিকে জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে সুরক্ষিত করা হবে এবং দ্বিতীয়ত, জঙ্গল সাফারির জন্য এর বন রুটগুলি বিকাশের মাধ্যমে এখানে কর্মসংস্থানের সুযোগও তৈরি হবে।

বন বিভাগ সুরাই বনাঞ্চলের বন রুটগুলোকে বায়োডাইভারসিটি ট্রেইল হিসেবে গড়ে তুলেছে। এই এলাকাটি 180 বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত। এটি পূর্বে শারদা সাগর বাঁধ, পশ্চিমে খাতিমা নগর, উত্তরে মেলাঘাট রোড এবং দক্ষিণে পিলিভীত টাইগার রিজার্ভ এলাকা দ্বারা বেষ্টিত।

মজার ব্যাপার হলো, প্রাকৃতিকভাবে সুন্দর এই বনাঞ্চলটি শাল গাছ, চারণভূমি এবং পানিতে সমৃদ্ধ। এসব কারণে এখানে বাঘের আনাগোনা অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও এই বনাঞ্চলে প্রায় ১২৫ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, ১৫০ প্রজাতির পাখি এবং প্রায় ২০ প্রজাতির সরীসৃপ পাওয়া যায়। এখানে বনের পথের উন্নয়ন করে, জঙ্গল সাফারির জন্য প্রায় 40 কিলোমিটার একটি ট্রেইল প্রস্তুত করা হয়েছে, যেখানে জিপসিতে বসে পর্যটকরা বিরল বন্য প্রাণী (রয়েল বেঙ্গল টাইগার, ভালুক, চিতল, সম্ভার, কাকদ, প্যাঙ্গোলিন, কোরাল স্নেক, পান্ডা) দেখতে পারবেন। ইত্যাদি) সাথে মনোরম বন, তৃণভূমি, প্রাচীন শারদা খাল এবং সুন্দর পুকুর।

এছাড়াও, কাকড়া নালা সুরাই ইকোট্যুরিজম জোনের পশ্চিম সীমানায় অবস্থিত। এই খাঁড়িটি কুমিরের (মার্শ ক্রোকোডাইল) প্রাকৃতিক আবাসস্থল। মিঠা পানির উৎসে পাওয়া এই প্রজাতির কুমির ভুটান ও মায়ানমারের মতো অনেক দেশে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। ডিম পাড়ার এই প্রজাতিটিকে অত্যন্ত বিপজ্জনক বলে মনে করা হয়। বর্তমানে এই খাঁড়িতে শতাধিক মার্শ কুমির রয়েছে। পর্যটকরা যাতে সহজে এই কুমিরগুলো দেখতে পারেন, তার জন্য চার কিলোমিটার দীর্ঘ চ্যানেল ফেন্সিংকে ‘কাকড়া কুমির ট্রেইল’ হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। এটি রাজ্যের প্রথম ক্রোকোডাইল ট্রেইল। ট্রেইলে তিনটি ভিউপয়েন্ট এবং বেশ কয়েকটি ওয়াচ টাওয়ার তৈরি করা হয়েছে যাতে কুমিরগুলিকে নিরাপদে কাছাকাছি থেকে দেখা যায়। (এএনআই)

.

- Advertisement -spot_imgspot_img
Latest news
- Advertisement -spot_img
Related news
- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here